মঙ্গলবার - ১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

মঙ্গলবার - ১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ - ১লা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ - ১০ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

লামায় জীনামেজু উচ্চ বিদ‍্যালয়’র ভবন উদ্ভোধন

পার্বত্য বান্দরবান জেলার  লামা উপজেলার  জীনামেজু উচ্চ বিদ‍্যালয়’র ভবন উদ্ভোধন করা হয়েছে।

গত ২৮ মে  বেলা ১২ টার  সময় বিদ্যালয়ের নবনির্মিত ভবন  উদ্ভোধন করেন আলী কদম সেনা জোন কমান্ডার  লেঃ কর্ণেল মোঃ সাব্বির হাসান।

প্রধান অথিতির বক্তব্যে লেঃকর্ণেল মোঃ সাব্বির হাসান পিএসসি বলেন, লামা উপজেলার ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন পরিষদের বনপুর এলাকায় জীনামেজু উচ্চ বিদ্যালয়ের উদ্ভোধনের মাহেন্দ্রক্ষনে সবাইকে আন্তরিক অভিনন্দন। তিনি বলেন, অত্র এলাকায় শিক্ষার প্রসার ঘটাতে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজনীয়তা অনুভব করে, প্রতিষ্ঠানটি স্থাপনের জন্য উদ্যোগ নেন তৎকালীন জোন কমান্ডার লেঃ কর্ণেল মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান, পিএসসি। পরবর্তীতে নন্দন মালা ভান্তে, জীনামেজু এই স্কুলটি প্রতিষ্ঠার জন্য বিশেষভাবে উদ্যোগ গ্রহণ করেন। আপনারা নিশ্চয় আরও অবগত আছেন যে, অত্র এলাকায় বনপুর-সাংগু মৌজায় অবহেলিত ও সুবিধা বঞ্চিত ছাত্র ছাত্রীদের আধুনিক বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে শিক্ষার উন্নয়ন ঘটাতে আলীকদম জোনের সার্বিক তত্বাবধানে এই স্কুলটির নির্মাণ কাজ শুরু হয়।

জোন কমান্ডার বলেন শিক্ষা অমুল্য সম্পদ। একটি জাতির বিকাশ ও উন্নয়নের জন্য শিক্ষার ভূমিকা অপরিহার্য। শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড ও পূর্ব শর্ত। মেরুদন্ড ছাড়া মানুষ যেমন চলাচল করতে পারেনা, তেমনি শিক্ষা ছাড়া জাতি উন্নতির শিখরে আরোহণ করতে পারেনা। মানব জীবন তথা জাতীয় জীবনের নিরক্ষরতার মতো নরকীয় অভিশাপ আর নেই। শিক্ষা মানুষকে সত্যিকার মানুষ রুপে গড়ে তুলতে সাহায্য করে।

প্রধান অথিতি আরও বলেন নিরক্ষরতা সমাজের শত্রু, দেশের শত্রু, জাতির শত্রু। দেশ মাতৃকার উন্নতির জন্য তাই সর্বাগ্রে প্রয়োজন দেশের জনসাধারণকে শিক্ষিত করে তোলা। যে জাতি যত বেশি শিক্ষিত সে জাতি তত বেশি উন্নতি লাভ করেছে। তাই শিক্ষাকে সহজলভ্য করে প্রতিটি মানুষের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছে দেওয়ার উপায় আমাদের উদ্ভাবন করতে হবে। তবেই দেশের জনগণ আদর্শ শিক্ষায় শিক্ষিত হবে। আর জনগণ শিক্ষিত হলে দেশ ও জাতি উন্নতির চরম শিখরে পৌঁছাবে। তারই ধারাবাহিকতায় এই স্কুলটি আপনাদের সহযোগীতায় একটি সুন্দর প্রতিষ্ঠান হিসেবে গড়ে উঠবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।তিনি বলেন আপনারা জেনে খুশী হবেন যে, এই প্রতিষ্ঠানে অত্র এলাকার সকল ছাত্র ছাত্রীরা পড়াশোনা করার সুযোগ পেয়ে থাকবে। আপনারা জানেন যে, আলীকদম জোন প্রতিমাসেই আলীকদম এবং লামা উপজেলায় বিভিন্ন মাদ্রাসা, এতিমখানা, স্কুল, কলেজ সহ সর্বমোট ২২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, শিক্ষক শিক্ষিকা, গরীব ও দুঃস্থ পরিবার, এবং আলীকদম মুরং কমপ্লেক্স ছাত্র ছাত্রীদের খাবার বিল বাবদ প্রতি মাসেই অনুদান প্রদান করে আসছে। অদ্যাবধি আলীকদম জোনের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ তত্ত্বাবধানে আলীকদম ও লামা উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় মৈত্রী ও প্রত্যয়ী স্কুলসহ ১৫ টির অধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নিমার্ণ করা হয়েছে। সেই সাথে আলীকদম জোনের আওতাধীন সকল ক্যাম্প গুলো ও অসহায়দের মাঝে আর্থিক সহায়তা দিয়ে যাচ্ছে।

অনুষ্ঠানে  বিশেষ অতিথি ছিলেন জোনাল স্টাফ অফিসার ক্যাপ্টেন আজিজুল হাকিম প্রিন্স। এছাড়াও অন্যান্যদের মধ্যে বিশিষ্ট মানবাধিকার কর্মী ও সাংবাদিক এম রুহুল আমিন, উ নন্দ মালা ভিক্ষু প্রতিষ্ঠাতা জীনামেজু অনাথ আশ্রম,৩নং ফাঁসিয়া খালী ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব নুর হোসেন,মফিজ উদ্দিন প্রধান শিক্ষক, ইয়াংছা উচ্চ বিদ্যালয়, বদিউর আলম প্রতিষ্ঠাতা,জীনামেজু উচ্চ বিদ্যায়, চংপাত হেডম্যান, ২৮৫ নং সাংগু মৌজা, মংমিগ্য ইউপি,সদস্য ১নং ওয়ার্ড, ৩নং ফাঁসিয়া খালী ইউপি সহ অত্র প্রতিষ্ঠানের ছাত্র ছাত্রী ও অভিভাবক ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তি গণ সহ২০০ জন গন‍্যমান‍্য ব‍্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

 

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn